আর্সেনালের ইতিহাস - ১ম পর্ব

আর্সেনালের ইতিহাস - ১ম পর্ব

ভিত্তিকাল: ১৮৮৬ – ১৯২৫ 

অক্টোবর, ১৮৮৬ ডেভিভ ডানস্কিন নামে এক স্কটিশ ফুটবলপ্রেমী ও তার ৩ বন্ধুর আহবানে ১৫ জন ব্যক্তির ৯০ পেন্স এবং ৩ শিলিং দ্বারা কেনা ফুটবল দিয়ে যাত্রা শুরু হয় ইংল্যান্ডের ইতিহাসে অন্যতম সেরা ক্লাব আজকের আর্সেনালের। জন্ম হয় দক্ষিণ-পূর্ব লন্ডনের একটি অস্ত্র প্রস্তুতকারক ফ্যাক্টরির প্রাঙ্গন থেকে, যার প্রধান উদ্যোক্তা ও খেলোয়াড়েরা ছিলেন মূলত Arsenal Munitions Factory-এর শ্রমিক-কর্মচারী-কর্মকর্তা। আর তাই পরবর্তীতে “Arsenal” নামকরণের পেছনে এই অস্ত্র কারখানার প্রভাবই বেশি। আবার ক্লাবের “Gunner” ডাকনামের পেছনে এই অস্ত্র-ইতিহাস জড়িত।

যাহোক শ্রমিকদের একটি ওয়ার্কশপের নাম অনুসারে প্রথমদিকে নাম রাখা হয় “ডায়াল স্কয়ার”। গানার হিসেবে ১ম ম্যাচেই ইস্টার্ন ওন্ডারার্স-এর বিপক্ষে পায় ৬-০ গোলের উদ্দীপিত জয় । 

কিছুদিন পর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় “র‍য়্যাল আর্সেনাল”। প্রথম স্টেডিয়াম ছিল “মানোর গ্রাউন্ড”। অপেশাদার ক্লাব হিসেবে  র‍য়্যাল আর্সেনাল প্রথমবারের মত ১৮৮৯/৯০ সিজনে এফএ কাপে অংশগ্রহণ করে। এই সময়ে আর্সেনাল সাফল্য ছিল “লন্ডন চ্যারিটি কাপ”, “কেন্ট সিনিয়র কাপ” এবং “কেন্ট জুনিয়র কাপ” জয়।

১৮৯৩ সালে “উলউইচ আর্সেনাল” নামে পেশাদার দল হিসেবে সেকেন্ড ডিভিশনে যোগ দেয় এবং  ৯ম হিসেবে সিজন শেষ করে। এই সিজনের অবিস্মরণীয় মুহূর্ত এফএ কাপে অ্যাশফোর্ড ইউনাইটেডের বিপক্ষে ১২ – ০ গোলের জয় যা আজও এফএ কাপে আর্সেনালে সর্বোচ্চ গোলের জয়ের রেকর্ড। সেরা সাফল্য এফএ কাপের সেমি-ফাইনাল । 

১৯১০ সালে “উলউইচ আর্সেনাল” ক্লাব তারল্য সংকটে নিমজ্জিত হয় এবং প্রায় দেউলিয়ার কাছাকাছি চলে যায় । কিন্তু তৎকালীন ফুলহ্যাম চেয়ারম্যান এবং অন্যতম বিজনেস ম্যাগনেট “স্যার হেনরি নরিস” ক্লাবকে কিনে নেন । স্যার হেনরি নরিসকে আর্সেনালের জনক বললে অত্যুক্তি হবে না কারণ তিনি বুঝতে পারেন যে যদি বড় ক্লাব হতে হয় তবে আরো জনবহুল স্থানে স্থানান্তর হতে হবে । তার এই দূরদৃষ্টিতার জন্যই ক্লাবের নিজস্ব মাঠ হিসেবে “হাইবুরি পার্ক” জন্মের হয়, ক্লাবের আয় বৃদ্ধি পায় এবং তৎকালে লন্ডনে প্রতিষ্ঠিত ক্লাব আজকের টটেনহ্যামের সাথে ঐতিহাসিক রিভালরির সূত্রপাত হয় কারণ টটেনহ্যাম চায়নি দক্ষিণ থেকে এসে আর্সেনাল উত্তর লন্ডনে স্থায়ী হোক । এখান থেকেই জন্ম হয় “উত্তর লন্ডন ডার্বি” ম্যাচ । কিন্তু আর্সেনাল ১৯১২/১৩ সিজনে সেকেন্ড ডিভিশনে রেলিগেটেড হয় ।  

১৯১৪ সালে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় “দ্য আর্সেনাল” এবং অবশেষে ১৯১৯ সালে নাম হয় আজকের “আর্সেনাল”। 

প্রথম বিশ্ব যুদ্ধের পর ফুটবল লিগ কমিটি ফার্স্ট ডিভিশনে দল বৃদ্ধি করতে চাইলে ২য় দল হিসেবে ১৯১৯ সালে ভোটের মাধ্যমে আর্সেনাল ফার্স্ট ডিভিশনে প্রমোটেড হয় এবং টটেনহ্যাম সেকেন্ড বিভাগে নেমে যায়। এই ঘটনার পর আর্সেনাল-টটেনহ্যাম সম্পর্ক আরো খারাপ হয় এবং যার ফলশ্রুতিতে “নর্থ লন্ডন ডার্বি” দুই দলের কাছে এত মর্যাদাকর হিসেবে গণ্য হয়। যদিও ধারণা করা হয় স্যার হেনরি নরিসের প্রভাবে আর্সেনাল বেশি ভোট পেয়ে ফার্স্ট ডিভিশনে সুযোগ পায় কিন্তু আর্সেনাল একমাত্র ক্লাব, যা ১৯১৯ সালের পর কখনও ফার্স্ট ডিভিশন থেকে রেলিগেটেড হয়নি। 

১৯১৯ – ১৯২৫ এই সময়ে আর্সেনালের সাফল্য বলতে ছিল লিগে ৯ম হওয়া। যার ফলশ্রুতিতে স্যার হেনরি নরিস ম্যানেজার লেসলি নাইটনকে বরখাস্ত করে এবং “হারবার্ট চ্যাপম্যান”-কে ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। শুরু হয় চ্যাপম্যান যুগ এবং আর্সেনালের গৌরবের পথযাত্রা। 

ক্রিকেট ও রাগবি প্রভাবিত কেন্ট অঞ্চলে ১৫ জন ব্যক্তির কেনা একটি ফুটবল দিয়ে শুরু হওয়া ক্লাব হয়তো ভাবতেও পারেনি ক্লাবটি ভবিষ্যতে অন্যতম সেরা ক্লাব হবে যার গৌরবময় যাত্রা শুরু হয় হারবার্ট চ্যাপম্যান নামের এক লিজেন্ডারি আর্সেনাল ম্যানেজার-এর হাত ধরে। 

 

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন