ম্যাচ রিপোর্টঃ সেল্টিক ০-৫ পিএসজি

ম্যাচ রিপোর্টঃ সেল্টিক ০-৫ পিএসজি

নেইমার আসার পর পিএসজির গোলবন্যা যেন থামছেই না। গায়ে লেগে থাকা বিশ্বরেকর্ড ট্রান্সফারের ট্যাগের প্রতি সুবিচার করে চলেছেন এই ব্রাজিলিয়ান। সাথে নতুন যোগ দেয়া কিলিয়ান এমবাপ্পেও নিজেকে প্রমাণ করতে সময় নেননি একদমই। চ্যাম্পিয়নস লীগে তাদের প্রতিপক্ষ সেল্টিক সেই তাপ টের পেয়েছে হাড়ে হাড়ে। গোল পেয়েছেন নেইমার, এমবাপ্পে দুইজনই। সাথে পুরোনা সৈনিক উরুগুইয়ান কাভানিও যোগ দেওয়ায় গোলের ব্যবধানটা হয়েছে লজ্জা দেবার মতই, ৫-০!

পিএসজি প্রথমবারের মত তাদের তৃতীয় কিট পড়ে নেমেছিলো মাঠে। খেলা শুরুর পরই শুরু হয় তাদের আক্রমণ। দলটি যে চ্যাম্পিয়নস লীগে প্রতিপক্ষের মাঠে খেলতে নেমেছে  বোঝাই যাচ্ছিলোনা!  একেবারে শুরুতেই পিএসজির পক্ষে একবার পেনাল্টির আবেদন নাকচ হয়। ১৬তম মিনিটে গোল বাতিল হয় অফসাইডে। তবু গোলের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি তাদের। র‍্যাবিওটের পাস ধরে ড্রিবল করে ঢুকে ক্লোজ রেঞ্জ শটে তাদের এগিয়ে নেন নেইমার। ম্যাচের তখন ২০ মিনিট। খেলার ধারায় বোঝা যাচ্ছিলো সেল্টিকের সামনে বিপদ অপেক্ষা করছে। পরের গোল আসে ৩৪তম মিনিটে। এবার গোলদাতা আরেক নবাগত এমবাপ্পে। মিনিট পাচেক পরই পেনাল্টি পায় পিএসজি। পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে তিন গোলের ব্যবধানে এগিয়ে নেন কাভানি। প্রথমার্ধ শেষে ৩-০।

বিরতির পরও খেলা চলে একই গতিতে। তবে বেশ ভালো কয়েকটি আক্রমণের পরও গোল আর পাওয়া হচ্ছিলো না পিএসজির। অবশেষে ফল আসে ৮২তম মিনিটে। গোলদাতা পিএসজির কেউ না, আত্নঘাতী গোল করে বসেন সেল্টিক ডিফেন্ডার লাস্টিগ! সেল্টিকের দুর্দশা তাতে শেষ হয়নি। তিন মিনিট পরই আসাধারণ গোল কাভানির। ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় আর দলের পঞ্চম গোল করেন তিনি লেফটব্যাক কুর্জায়ার ক্রসে কঠিন কোণ থেকে দারুণ হেডারে।

বড় জয়ে পেয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়ার লড়াইয়ে অনেকটা এগিয়ে গেলো পিএসজি। পরের গ্রুপ ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ শক্তিশালী বায়ার্ন মিউনিখ।     

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন