মুক্তি চান 'ক্রিমিনাল' কস্তা

মুক্তি চান 'ক্রিমিনাল' কস্তা
Shihab Rahman August 14, 2017, 6:24 pm English premier league

চেলসি থেকে মুক্তি চাইছেন ডিয়েগো কস্তা। ২৮ বছর বয়সী এই স্প্যানিশ স্ট্রাইকার দাবি করেছেন চেলসি তার সাথে একজন ক্রিমিনালের মত ব্যবহার করছে এবং যত দ্রুত সম্ভব চেলসি থেকে বিদায় নিতে চান তিনি। এও জানানযে চেলসির দলের সঙ্গে তাকে ট্রেনিং করতেও দেওয়া হয়না এখন আর বরং রিজার্ভ দলের সাথে ট্রেইন করতে বলা হয়েছে তাকে। 

"চেলসির কাছ থেকে মুক্তি পেতে অপেক্ষা করছি আমি। আমি চেলসি ছেড়ে যেঁতে চাইনি। এখানে আমি বেশ সন্তুষ্ট ছিলাম। কিন্তু যখন কোচ আপনাকে দলে চায়না আপনার কিছুই আর করার থাকেনা।"

"আমার টিম-মেটরাও সকলে একমত হবে। তারা সকলেই আমার খোজ নিয়েছে, এসএমএস পাঠিয়েছে। বলেছে তারা আমার সাথে আছে এবং আমাকে খুব মিস করে। আমি সবসময়ই তাদের সাথে কথা বলি। বিশেষ করে লুইজ, ফ্যাব্রিগাস ও উইলিয়ানের সাথে।"

"জানুয়ারিতে আমি নতুন কন্ট্র্যাক্টে সই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। কথা প্রায় পাকাপাকি হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু হঠাৎ করে চেলসি কন্ট্র্যাক্ট উঠিয়ে নিল। আমার মতে কোচের কথায়ই তারা এটা করেছে। তিনিই বোর্ডকে বলেছেন কন্ট্র্যাক্ট বাতিল করতে। কন্তের চিন্তাধারা বেশ স্পষ্ট। উনি উনার সিন্ধান্ত-পরিকল্পনা কখনই পরিবর্তন করেননা।"

"একজন কোচ হিসেবে আমি কন্তেকে যথেষ্ট সম্মান করি। তিনি চেলসিকে নিয়ে বেশ ভাল করছেন। তবে উনি মানুষ হিসেবে প্লেয়ারদের সঙ্গে অন্তরঙ্গ হননা। প্লেয়ারদের থেকে বেশ দূরে থাকেন। তিনি ইতালি থেকে এসেছেন। হয়তবা সেখানে ড্রেসিংরুম বেশ গুরুগম্ভীর থাকে কিন্তু এখানে সবসময়ই বেশ হাস্যজ্জল থাকে ড্রেসিং রুম।" 

কস্তা আরও জানান সাবেক চেলসি কোচ জোসে মোরিনহো তাকে ফোন দিয়েছেন। যদিও গতবছর অনেকের মতেই তাদের মধ্যকার সম্পর্ক ভাল ছিলনা। তবে এমন কথা কস্তা পুরোই অস্বীকার করেনঃ " মোরিনহো আমাকে ফোন দিয়েছেন। আমার খোজ নিয়েছেন। আমাদের মাঝে কখনই কোন বিবাদ ছিলনা। জোসেকে যেতে দেখে আমরা সবাই বেশ কষ্ট পেয়েছিলাম।"

"আমি মেনে নিয়েছি কোচ ভিন্ন স্ট্রাইকার চেয়েছিলেন। মোরাতা বেশ ভাল প্লেয়ার। মাদ্রিদে বেশ ভাল এক মৌসুম কাটিয়েছেন এবং চেলসিতেও ভালই করবেন। কিন্তু একজন প্লেয়ারকে নিষেধ করার কিছু নিয়ম আছে। টেক্সট মেসেজ পাঠানো সেই নিয়মের মধ্যে পড়েনা। আপনার উচিৎ প্লেয়ারকে সরাসরি তা জানানো।"

"আমি তখন স্পেনের জাতীয় দলের সঙ্গে ছিলাম। মেসেজ পেয়ে বেশ অবাক হয়েছিলাম। আমার রুম-মেটদেরকেও দেখিয়েছিলাম। তারা কেউই বিশ্বাস করতে পারেনি এসএমএসের মাধ্যমে এমন একটা সংবাদ দিবে চেলসি। আমি খুবই রেগে গিয়েছিলাম। কিন্তু এখন আর রেগে নেই। তবে আমি মেসেজটি ডিলিট করিনি। কেউ যদি আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা বলার অভিযোগ তুলে, আমি তাকে যেন দেখাতে পারি।"

"আমি আইনগত ব্যবস্থা নিতে চাইনা। আমি চাই তারা আমার সাথে ন্যায্য ব্যবহার করুক। তারা যদি আমাকে নাই চায় তাহলে ছেড়েই বাঁ কেন দিচ্ছেনা? তবে আমার যা করনিয় আমাকে তাই করতে হবে। আমি চাই এটলেটিকো মাদ্রিদে ফিরে যেতে। ডিয়েগো সিমিওনে আমাকে তার দলে চান। তার সঙ্গে আমার বেশ ভাল সম্পর্ক আছে। আমি চেলসিকে আমার সিদ্ধান্তও জানিয়ে দিয়েছি। চেলসি আমাকে চীনে বেচতে চায় কিন্তু আমি বেশ কিছু অফার রিজেক্ট করছি।"

"তারা আমার সাথে ক্রিমিনালের মত আচরণ করছে। আমাকে রিজার্ভ টিমের সাথে ট্রেনিং করতে বলছে। আমাকে ড্রেসিং রুমে ঢুকতে দেওয়া হয়না। কারো সাথে কথা বলতে দেওয়া হয়না। আমি কোন সন্ত্রাসী নই। এরকম আচরণ মোটেও আমার প্রাপ্য নয়। আমি রিজার্ভদের সাথে ট্রেইন করতে চাইনি। তাই তখন থেকেই আমাকে জরিমানা করে চলেছে। আমি কোন সন্ত্রাসী নই। আমি ভুল কিছু করিনাই। যদি তারা আমাকে জরিমানা করতে চায়, করুক। প্রতি সপ্তাহেই আমাকে জরিমানা গুন্তে হচ্ছে। কিন্তু টাকা আমার কাছে মুখ্য বিষয় নয়।আমি বর্তমানে আমার পরিবারের সাথে ব্রাজিলে আছি। বেশ খুশি আছি। প্রয়োজন হলে পুরো বছরটাই ব্রাজিলে থেকে যাব। যদি চেলসি পুরো বছরই বেতন না দিতে চায়, তাতেও আমার আপত্তি থাকবেনা।" 

"আমি যদি নিজে ভুল করতাম, আমি এই মুহূর্তেই ফিরে গিয়ে তাদের আদেশ মাথা পেতে শুনতাম। এই গ্রীষ্মে তারা আমাকে ফোন দিয়েছিল। কিন্তু তারপর আমাকে না জানিয়েই প্রো-সীজনের টূরে চলে গেল। জীবন এরকমই। আমি আমার প্রাপ্য সম্মান পাইনি। আমি চাই দ্রুত এটলেটিকো মাদ্রিদে আমার ট্রান্সফার হয়ে যাক। আমি যত দ্রুত সম্ভব মাদ্রিদে ফিরতে চাই। নিজেকে প্রস্তুত করতে চাই আসছে বিশ্বকাপ উপলক্ষে।"





Similar Post You May Like

জনপ্রিয় খেলার সংবাদ

Find us on Facebook