লিভারপুলঃ স্কোয়াড এনালাইসিস (২০১৭-২০১৮)

লিভারপুলঃ স্কোয়াড এনালাইসিস (২০১৭-২০১৮)
Muntasir July 26, 2017, 9:22 pm English premier league

১৭/১৮ সিজনের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে সব ইংলিশ দল। ট্রান্সফার মার্কেটে প্রিমিয়ারলীগ এর টপ ক্লাবগুলোর একটিভিটি দেখলেই বোঝা যায় দল গুছিয়ে নিতে কতটা ডেস্পারেট তারা, যদিও টটেনহাম এবার ট্রান্সফার বিজনেসে কিছুটা নিষ্প্রভ। তবে সিটির সবচেয়ে এক্সপেন্সিভ ডিফেন্স গড়া, ইউনাইটেডের লুকাকুকে কেনা, চেলসিতে মোরাতা, আর এভারটনও ভালো বিজনেস করছে এ পর্যন্ত। আর অন্যান্য দলগুলোর মতো দল গুছিয়ে নতুন সিজন শুরুর দৌড়ে প্রস্তুত হচ্ছে লিভারপুল। আর বরাবরের মতোই এবারও ড্রামাটিক ট্রান্সফার উইন্ডো চলছে লিভারপুলের। রাফা বেনিতেজের ডিপার্টমেন্ট এর পর অনেক ঝড়ঝাপটা অতিক্রম করে বর্তমান লিভারপুলকে ক্লপের লিভারপুল বলতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন কপাইটরা।

ক্লপ আসার পরে ৪ বছর সময় চেয়েছিল টাইটেল জেতার জন্য। আর তার জন্য ক্লপ যে লিভারপুল টিম তৈরি করছে তাকে ক্লপের লিভারপুলই বলতে হয়, কারণ বর্তমান লিভারপুল টিম বিগত কয়েক বছরের তুলনায় অনেক স্ট্রং আর ফাইনান্সিয়ালি স্ট্যাবল। দলকে পরিপূর্ণ করতে এবার লিভারপুল এর প্রাইমারি টার্গেট ছিলো রোমার মোহামেদ সালাহ, সাউদাম্পটন এর ভার্জিল ভ্যান ডাইক, লিপজিগ এর নবি কেইটা, হাল সিটির অ্যান্ডি রবার্টসন। ইতিমধ্যে চেলসি থেকে ৩ মিলিওনের বিনিময়ে সোলানকে কে দলে আনা হয়েছে। ১৯ বছর বয়সী স্ট্রাইকারের সামনে লেওয়ার উত্তরসূরি হওয়ার পটেনশিয়াল আছে। ৩৪ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে দলে যোগ দেয়া সালাহ গত সিজনে রোমার হয়ে সেরি আ তে ১৫ গোল আর ১১ এসিস্ট করেন। আর অ্যাড অন্স সহ ১০ মিলিয়ন এ রবার্টসন সাইনিং সম্পন্ন করেছে লিভারপুল। এরকম জেনুইন লেফট ফুটেড লেফট ব্যাক এর খোঁজ অনেকদিন থেকেই করছিলো লিভারপুল। তবে ভ্যান ডাইক আর কেইটার ট্রান্সফারের জন্য যথেষ্ট কাঠখড় পোড়াতে হচ্ছে অল রেডদের। সাউদাম্পটন থেকে ভ্যান ডাইককে ভেড়ানোর সম্ভাবনা থাকলেও লিপজিগ কেইটাকে ছাড়তে প্রস্তুত না। লিভারপুলের করা প্রথম দুই বিড রিজেক্ট করেছে লিপজিগ। তবে তাকে দলে টানার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে লিভারপুল। কেইটার সাথে পার্সোনাল এগ্রিমেন্ট হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত লিপজিগে থেকে যেতে পারে কেইটা। পাশাপাশি আর্সেনাল থেকে অক্সল্যাড চেম্বারলাইন কে কিনতে আগ্রহী লিভারপুল। আর্সেনালে অক্স এর চুক্তির মেয়াদ বাকি আর এক বছর এবং চুক্তির মেয়াদ বাড়াতে এ পর্যন্ত রাজি হয়নি অক্স। এমরে চান এর জুভেন্টাস যাওয়ার গুঞ্জন থাকলেও চান লিভারপুল ছাড়বেনা মোটামুটি নিশ্চিত। আর ফিলিপে কৌটিনিয়োর জন্য বার্সার অফার রিজেক্ট করে দিয়েছে লিভারপুল। কারন লিভারপুল এর ফাইনান্সিয়াল প্রবলেম এখন নাই। অর্থাৎ প্রফিট করার জন্য কৌটাকে বেঁচার কোনো কারণ নাই। সব ঠিক থাকলে লিভারপুলে সিজন শেষ করে বিশ্বকাপ খেলতে রাশিয়া যাবে কৌটিনিয়ো। লিভারপুলের প্রিন্স লিভারপুলেই থাকছে।

বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করলে ১৭/১৮ সিজনেও ৪-৩-৩ ফর্মেশনে খেলবে লিভারপুল। গোলকিপার হিসেবে খেলবে সিমন মিগনোলেট যার গত সিজনে ইম্প্রুভমেন্ট চোখে পড়ার মত ছিল। ব্যাকাপ থাকবে লরিস ক্যারিয়াস। দুইজন সেন্টারব্যাক আর দুইজন ফুলব্যাক যারা ওভারল্যাপ করে ওপরে ওঠে প্রেসিংয়ে সাহায্য করতে। রাইট ব্যাকে থাকবেন ক্লাইন। ডিফেন্সিভলি ক্লাইন অনেক সলিড আর কন্সিস্টেন্ট ছিল গত সিজনে। তবে তার ক্রসিংয়ের অনেক ইমপ্রুভমেন্ট প্রয়োজন। সামনের সিজনে ভালো ক্রস সাপ্লাই করার দক্ষতা অর্জন করতে হবে ক্লাইন এর। তার ব্যাকআপ হিসেবে থাকবেন একাডেমী থেকে উঠে আসা ট্রেন্ট আর্নল্ড। সেন্ট্রাল ব্যাক জুটি হিসেবে দেখা যেতে পারি মাতিপ-ভ্যান ডাইক কে। তাদের ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে লভরেন আর ক্লাভান। ক্লাভান মুলত ফোর্থ সিবি হিসেবে দলে থাকবেন, লভরেন তার থেকে বেশি ম্যাচ খেলবে। মুলত ভ্যান ডাইক, মাতিপ আর লভরেনকে রোটেট করে খেলানো হতে পারে। লেফট ব্যাকে দলের নতুন সংযোজন রবার্টসন থাকবে। আর মিলনার তার সাথে রোটেট করে খেলবে। ডিফেন্সিভ মিড এ থাকবে ক্যাপ্টেন জর্ডান হেন্ডারসন, যিনি। এই পজিশনে মুলত নাম্বার সিক্স রোল প্লে করবে হেন্ডারসন। নিচ থেকে বল আক্রমণভাগে ডিস্ট্রিবিউট করার দায়িত্ব থাকবে তার ওপর। হেন্ডারসন এর সামনে ডানে সেন্ট্রাল মিডে থাকবে লাল্লানা, বামে কৌটিনিয়ো। কৌটিনিয়ো এবার ক্লাসিক নাম্বার টেন রোল প্লে করবে তাই লাল্লানার বক্স-টু-বক্স রোল প্লে করতে দেখা যেতে পারে। আর তাদের ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে জিনি উইনাল্ডাম, মার্কো গ্রুইচ। গত সিজনের শেষদিকে হেন্ডারসন ইঞ্জুরড হওয়ার পরে এমরে চান তার স্থান পুরন করেছিলো। আর চানও ডিএম রোল প্রেফার করে। তাই তাকে এই পজিশনে দেখা যেতে পারে হেন্ডারসন এর ব্যাকআপ হিসেবে। তবে কেইটাকে দলে আনতে পারলে মিডফিল্ডের চিত্র অনেক ভিন্ন হবে। লেফট উইং এ থাকবে সাদিও মানে। গত সিজনে ১৩ গোল ও ৫ এসিস্ট ছিলো মানের নামে। রাইট উইংয়ে থাকবে আরেক স্কোরিং উইংগার মোহামেদ সালাহ। আর ফলস নাম্বার নাইন হিসেবে খেলবেন রবার্তো ফিরমিনো। ফিরমিনো নিচে নেমে এসে প্রেসিংয়ে হেল্প করে আর এটাকিং থার্ডে স্পেস ক্রিয়েট হয়। যার জন্য মানে আর সালাহ'র মত গতিশীল উইংগাররা গোল করার সুযোগ পাবে বেশি। গত সিজনে প্রিমিয়ারলীগে ১১ গোল ও ৭ এসিস্ট করে ফিরমিনো। তাছাড়াও বেন উডবার্ম, ওজো, আর ড্যানিয়েল স্টারিজ, ইংস, সোলানকে থাকবে ব্যাকআপ হিসেবে।

লিভারপুল ছাড়তে পারে এমন প্লেয়ারদের মধ্যে আছে আলবের্তো মরেনো, মামাদু সাখো, জন ফ্লানাগান, লাজার মার্কোভিচ। গত ইউরোপা লীগ ফাইনালের পরই মরেনোর ক্যারিয়ার মোটামুটি শেষ বলা চলে। সেভিয়ায় থাকাকালীন ভাল পারফর্ম করলেও লিভারপুলে তার পারফর্মেন্স এভারেজ এর নিচে। তাই দল ছাড়তে হতে পারে মরেনোকে। মামাদু সাখোর গত একবছর এর এক্টিভিটি আর অপেশাদারিত্বের ফলে তার উপর নারাজ ক্লপ। আর সাখোর লিভারপুল ক্যারিয়ার শেষ এটা সাফ জানিয়ে দেয়া হয়েছে। তাই এবার লিভারপুল ছাড়া মোটামুটি নিশ্চিত সাখোর। ফ্লানাগান আর মার্কোভিচ এর খেলা টিম এর সাথে স্যুট করেনা। মার্কোভিচ লিভারপুলে যথেষ্ট সুযোগ পেয়েও পারফর্ম করতে পারেনি। এই কজন প্লেয়ার দলে ডেডউড হিসেবে আছে। তাই তাদের সেল দিয়ে এক্সট্রা প্রফিট পাবে লিভারপুল। সাথে দল ছাড়তে পারে ডিভক অরিগি। ইতিমধ্যে ফিরমিনো, স্টারিজ, ইংস, সোলানকে ফাইট করছে স্ট্রাইকার পজিশন এর জন্য। তাই বেশি গেম টাইম পাওয়ার জন্য লিভারপুল ছাড়তে পারে ডিভক অরিগি। লোনে যেতে পারে ওজো আর জো গোমেজ। ১৭/১৮ তে চ্যাম্পিয়নস লীগ ফিরছে এনফিল্ডে। সিএল থাকায় অনেক ম্যাচ খেলার প্রেশার লিভারপুলের ওপর। সাথে লীগ ম্যাচ, লীগ কাপ, এফএ কাপ তো আছেই। এজন্য স্কোয়াডের সব প্লেয়ারই সুযোগ পাবে খেলার। প্লেয়ারদের ফর্ম আর ফিটনেস বলে দেবে সে কতটুকু খেলার সুযোগ পাবে। ১৭/১৮ সিজন লিভারপুলের জন্য অনেক বড় একটা সিজন হতে পারে... কারণ ২০১২ তে কার্লিং কাপ জেতার পর আর কোনো মেজর ট্রফি জিততে পারেনি লিভারপুল। তবে সব দিক বিবেচনা করে বলা যায় হয়ত ১৭/১৮ সিজনই হবে সে সিজন, যেখান থেকে নতুন করে গল্প শুরু হবে লিভারপুলের ইউরোপিয়ান এলিট হওয়ার। ট্রফি জিততে পারাটা সহজ না তবে আত্মবিশ্বাস পুরো স্কোয়াডেই আছে, কিছু জেতার দায়বদ্ধতা আছে। কপাইটদের ভরসার প্রতীক ক্লপ আর ক্লপের লিভারপুল কতদুর আগাতে পারবে তা মাঠের খেলাই বলে দেবে। তবে এটা নিশ্চিত, যে লিভারপুল আমরা গত কয়েক বছর দেখেছি, এই লিভারপুল সেই লিভারপুল নয়!





Similar Post You May Like

জনপ্রিয় খেলার সংবাদ

Find us on Facebook