বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসঃ (পর্ব-৯) ঢাকার ফুটবলের জয়গাথা

বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসঃ (পর্ব-৯) ঢাকার ফুটবলের জয়গাথা

যদি প্রশ্ন করা হয়, কোন ইংলিশ ফুটবল ক্লাবের ভা্রতবর্ষের মাটিতে প্রথম পরাজয় কোথায় এবং কখন? উত্তর হবে আমাদের এই ঢাকার মাটিতে, ঢাকা একাদশের কাছেই।

আজ থেকে ৮০ বছর আগে,১৯৩৭ সালের ২১ নভেম্বর, ইংল্যান্ডের ২য় বিভাগের দল আইলিংটন কোরিন্থিয়ান্স এফসি পল্টন মাঠে ঢাকা একাদশের কাছে ১-০ গোলে পরাজিত হয়। এটাই কোন ইংলিশ ফুটবল দলের ভারতবর্ষের মাটিতে প্রথম পরাজয়।

প্রথমে একটু দলটি সম্পর্কে জেনে আসা যাক। আইলিংটন কোরিন্থয়ান্স এফসি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৩২ সালে টম স্মিথের হাত ধরে। ক্লাবটি ইংলিশ ফুটবল ফেডারেশনের অন্তর্ভুক্ত ছিল। ক্লাবটির মূল উদ্দেশ্য ছিল প্রীতি ম্যাচ খেলে চ্যারিটির জন্য অর্থ উপার্জন। ক্লাবটির শক্তি এতটাও কম ছিল না কারণ তারা লীগে আর্সেনাল, চেলসি, ফুলহামের মত দলগুলোর রিজার্ভ টিমের সাথে প্রতিদ্বন্দিতা করত। তারা সারা বিশ্বে ৯৫ টির ও বেশি ম্যাচ খেলে বেড়িয়েছে।
দলটিও ২য় বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহ থাবা থেকে বাচতে পারেনি। ১৯৩৯ সালে আইসল্যান্ডে শেষ সফর করে ১৯৪০ সালের পর বিশ্বমানচিত্র থেকে হারিয়ে যায়।

দলটি কোলকাতা থেকে গোয়ালন্দ হয়ে স্টিমারযোগে ঢাকায় পৌছায়। ঢাকা একাদশের বিরুদ্ধে দুটি ম্যাচের জন্য ঢাকায় পা রাখে দলটি। দুটি ম্যাচই অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকা স্পোর্টিং এসোসিয়েশন(ডিএসএ) মাঠে। খেলার টিকিটের মূল্য ছিল মাটিতে এক টাকা, কাঠের গ্যালারী ২ টাকা, চেয়ার ৫ টাকা। তারপরও ১৯৪০ এর দশকে বিশ হাজার টিকেট বিক্রি হয়।

২১ নভেম্বর, ১৯৩৭ সালে প্রথম ম্যাচে আইলিংটন কোরিন্থয়ান্স ঢাকা একাদশের কাছে ১-০ গোলে পরাজিত হয়। দলের পক্ষে একমা্ত্র গোলটি করেন পাখি সেন। কিশোরগঞ্জের ছেলে পাখি সেন তখন জগন্নাথ কলেজের ছাত্র ছিলেন। ২য় ম্যাচে ২২ নভেম্বর, ১৯৩৭ সালে অবশ্য ঢাকা একাদশ ১-০ গোলে পরাজিত হয়।


আইলিংটন কোরিন্থয়ান্স দলের নেতৃত্ব দেন ই বি ক্লার্ক। ঢাকা একাদশের নেতৃত্ব দেন মেডিকেল স্কুলের ছাত্র এস মিত্র। রেফারির দায়িত্ব পালন করেছেন ঢাকা স্পোর্টিং অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক খাজা মোহাম্মদ আজমল। লাইনসম্যান ছিলেন আর বসাক ও এস বসাক।

 প্রথম ম্যাচে ঢাকা একাদশে ছিলেন রঞ্জিত বসু, রাখাল মজুমদার, জে সরকার, আর সেন, যোগ জীবন দত্ত, এস মিত্র, এস ঘোষ, পি মুখার্জি, এস কর, পাখি সেন ও বি রায় চৌধুরী। দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা দলে যোগ জীবন দত্তের পরিবর্তে খেলেছেন সূর্য অহিগুহ রায়। প্রশিক্ষক ছিলেন বাঘা সোম।

প্রথম ম্যাচে কোরিন্থিয়ান্স দলের খেলোয়াড়রা হলেন উইং ফিল্ড, ম্যানিং, বুকলিন, ভ্যান্স, হুইটেকার, মিলার, ব্রেথওয়ে, আভেরি, ট্যারেন্ট শেরউড ও পিয়ার্স। দ্বিতীয় ম্যাচে অংশ নিয়েছেন  লংম্যান, মার্টন, ক্লার্ক, ভ্যান্স, হুইটেকার, রাইট, রিড, ব্রাথ বেরি, ট্যারেন্ট, আভেরি ও মিলার।

ঢাকা একাদশের কাছে হারের আগে টানা ৩৬ ম্যাচ অপরাজিত ছিল আইলিংটন কোরিন্থয়ান্স। ঢাকা একাদশের কাছে পরাজয়ের খবর সেই সময়কার ব্রিটিশ পত্রপত্রিকা গুরুত্ব দিয়েই প্রকাশ করে। কোরিন্থিয়ান্স দলের অধিনায়ক ঢাকায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তাঁর বক্তব্যে বলেছেন,

এযাবৎ বাংলার রয়েল বেঙ্গল টাইগারের কথা বইপত্রে পড়েছি, শুনেছি, জু-তে খাঁচায় দেখেছিআমার সৌভাগ্য সেই রয়েল বেঙ্গল টাইগারের সঙ্গে মাঠে আমার এবং দলের সবার পরিচয় ঘটেছে।

নিঃসন্দেহে গর্ব করার মতই একটি ম্যাচ!!

আগের পর্বের লিংক

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন