ম্যাচ রিপোর্টঃরিয়াল মাদ্রিদ ০-৩ বার্সেলোনা

ম্যাচ রিপোর্টঃরিয়াল মাদ্রিদ ০-৩ বার্সেলোনা

রিয়াল মাদ্রিদ এই বছরের ৫টি সিলভারওয়্যার দেখানোর মাধ্যমে এল-ক্লাসিকো শুরু করেছিলো কিন্তু শেষ হয়েছিলো - গোলের ব্যবধানের হার নিয়ে। ২৩৭ তম ক্লাসিকো শেষ হয় বার্সেলোনার - জয় দিয়ে। এই জয় বার্সেলোনাকে এটলেটিকো মাদ্রিদ থেকে পয়েন্ট এগিয়ে নিয়ে যায় টপ অফ দা টেবিলে এবং রিয়াল মাদ্রিদ থেকে ১৪ পয়েন্ট এর লিড।

সেকেন্ড হাফে লুইস সুয়ারেজ, লিওনেল মেসি এবং এলেক্স ভিদালের গোলে কাতালান ক্লাবটি টানা লিগ ম্যাচ সান্তিয়াগো বারনাব্যুতে জয় পায় যা একটি ক্লাব রেকর্ড। 

হোস্টরা সারপ্রাইসিংলি বার্সার -ম্যান মিডফিল্ডের সাথে কম্পিট করে মাতিও কোভাচিচকে খেলায় যেখানে সবাই ভেবেছিলো আসেন্সিও অথবা বেল স্টার্ট করবে। সুয়ারেজের ৫৪ মিনিটের গোলের আগে বার্সার দেয়াল ভাংগার সবচেয়ে কাছাকাছি ছিলো বেঞ্জেমা। গোলের পর এটাকে রেইনফোরসমেন্ট আনার জন্য প্রস্তুত হচ্ছিলো জিদান। এই সময়ে কারভাহাল ইচ্ছা করে বল হাত দিয়ে গোল বাঁচায় এবং রেড কার্ড  দেখে মাঠ থেকে বিদায় হন। পেনাল্টি স্পট থেকে কোনো ভুল করেননি মেসি। এল ক্লাসিকোতে নিজের ২৫তম গোল করেন এবং লিগে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে সর্বচ্চো ১৭তম গোল করেন। এই গোলের মাধ্যমে তিনি জারড মুলারের(৫২৫) একটি ক্লাবের হয়ে সর্বচ্চো গোলের রেকর্ড ভাঙেন গ্যারেথ বেল টের-স্টেগেন কে একটি শটের মাধ্যমে কম্পিটিশন দিয়েছিলেন কিন্তু টের স্টেগেন এখানে সফল হয় এবং ইঞ্জুরি টাইমে মেসি ম্যাজিকে ভিদাল শেষ পেরেক ঢুকান মাদ্রিদের কফিনে।

হোম সাইড দারুন সুচনা করে খেলার। রোনালদো মিনিটের মধ্যেই হেডে গোল করে কিন্তু অফসাইডের কারণে গোলটি বাতিল হয়। প্রথম ৩০ মিনিট রিয়াল মাদ্রিদ ডমিনেট করে কিন্তু হঠাৎ করেই মেসির পাসে পৌলিনহোর শট রুখে দেন কেইলর নাভাস। এরপর পৌলিনহোর আরো একটি হেড রুখে দেন নাভাস।

মাদ্রিদ ফার্স্ট হাফে ভালো খেলে কিন্তু বার্সা সেকেন্ড হাফ পুরোটাই ডমিনেট করে। ডমিনেটিং শুরু হয় বুস্কেটস থেকে যে পাস দেয় রেকিটিচ কে। রেকিটিচ মাদ্রিদের মিডফিল্ডে ঢুকে রবার্টও কে থার্ড লাইনে পাস দেন। রবার্টও পরে আনমার্কড সুয়ারেজ কে পাস দেয় এবং সুয়ারেজ বলটি জালে ঢুকান। ফ্রাস্টেশন এর জন্য কিছুক্ষন পর সুয়ারেজকে ফাউল করে বুকিং পায় মাদ্রিদ ক্যাপ্টেন। ৬৩ মিনিটে মেসির পাসে সুয়ারেজ প্রথমে শট করলে নাভাস বাচায় এবং পরে আবার শট করলে তা বারে লাগে। রিবাউন্ডে পৌলিনহো শট করলে কারভাহাল তা হাত দিয়ে ঠেকায় এবং সরাসরি লাল কার্ডের মুখ দেখেন। মেসি কনফিডেন্টলি পেনাল্টি নেন। ইঞ্জুরি টাইমে মেসি মারসেলো কে কাটিয়ে ভিদালকে পাস দেন, সেই পাসেই ভিদাল শেষ পেরেক ঢুকান। 

ম্যান অফ দা ম্যাচঃ লিওনেল মেসি।


Some Facts:


১। জিদান মাদ্রিদের প্রথম ম্যানেজার যিনি টানা হোম ম্যাচ হারেন বার্সার বিপক্ষে।

২। বার্সেলোনা এখন পর্যন্ত একটি ম্যাচ হারেনি যখন থমাস ভারমালিন স্কোয়াডে ছিল। (১৬ ম্যাচ- ১৩ জয়, ড্র)

৩। বার্সেলোনা টানা ২০ লিগ ক্লাসিকো তে গোল করেছে যা ক্লাব রেকর্ড

৪। লাস্ট ক্লাসিকোলাল কার্ড সব মাদ্রিদ প্লেয়াররা দেখেছেন। (রামোস-, ইস্কো, রোনালদো, কারভাহাল

৫। মেসি (৫২৬) জারড মুলারের (৫২৫) একটি ক্লাবের হয়ে হাইয়েস্ট গোলের রেকর্ড ভাঙেন 

 

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন