বার্সেলোনা ভাবনা

বার্সেলোনা ভাবনা

সিজন শুরু হওয়ার পর কেটে গেছে বেশ সময়। নতুন কোচ ভালভার্দে দলকে জয়ের ধারায় ধরে রেখেছেন অনেকদিন ধরে। লীগে বেশ ভাল ব্যবধান রেখে শীর্ষস্থান অক্ষুণ্ণ রেখেছে দল। উচলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে দ্বিতীয় রাউন্ডে পা দিয়েছে এরইমধ্যে। স্ট্যাটিস্টিক্যালি এই সিজনকে বেশ দারুণ মনে হচ্ছে বার্সার জন্য। কিন্তু আদতে তা নয়।

ফ্যানদের মন পুরোপুরি জয় করতে পারেননি এখনও কোচ আর্নেস্টো ভালভার্দে। কারণ হচ্ছে বার্সার ফিলসোফি। যাতে ফলাফল এবং সুন্দর ফুটবল একইসাথে মিশে আছে। ভালভার্দের দল একের পর এক ম্যাচে জয় তুলে নিলেও প্রত্যাশানুযায়ী বার্সার ধরণের ফুটবল খেলতে পারছে না এখনও। এর বেশ কিছু কারণও আছে অবশ্য। আসুন সেগুলোতে চোখ বুলাই -

১। ইঞ্জুরি

২। মেসি ছাড়া কোন ফরওয়ার্ডই ফর্মে নেই

৩। মিডফিল্ডেও ছন্দ নেই।

সামারে সাইন করা ওসমান ডেম্বেলে ইঞ্জুরিতে আছেন প্রায় সিজনের শুরু থেকেই। ২৩ ডিসেম্বরের ক্লাসিকোর আগে তাঁর মাঠে ফেরা নিয়েও আছে সংশয়। দলের ইঞ্জুরি স্কোয়াডে আছেন রাফিনহা আলকান্তারাও। একই সাথে গত মৌসুমের শেষ থেকেই ফর্মহীন সুয়ারেজ। ডিউলোফিউও এখনও হয়ে উঠতে পারেননি আস্থার প্রতীক। বার্সার ফরওয়ার্ড লাইন পুরোপুরি মেসি নির্ভর তাই এ সিজনে।

মিডফিল্ডেও ছন্দহীনতা ভোগাচ্ছে দলকে। বয়স বাড়ার সাথে সাথে ইনিয়েস্তা হারিয়ে ফেলছেন কন্সিটেন্সি । জাভির বিদায়ের পর থেকে সেই শূণ্যস্থানও এখনও পূরণ হয়নি। বুস্কেটসও ঠিক বুস্কেটসসুলভ হয়ে উঠতে পারছেন না নিয়মিত সমর্থনের অভাবে। ডেনিস, আন্দ্রে গোমেজ, রাকিটিচরাও প্রত্যাশা পূরণ করতে পারছেন না এখনও।

                                  

ব্যাকলাইনে চার সিবির মধ্যে মাশ্চেরানো-উমতিতি ইঞ্জুর্ড। ফিক্সড দুজন সিবি ভার্মালেন, পিকেই শেষ ভরসা। সেমেডো, আলবা যদিও সিজনের এ পর্যন্ত বেশ ইম্প্রেসিভ। ডিনিয়ে, রবার্তো, ভিদালকেও কোচ দলের প্রয়োজনে ডিফেন্সে ব্যবহার করছেন। গোলবারের নিচে মার্ক আন্দ্রে টার স্টেগান এ সিজনে বিশ্বের অন্যতম সেরা পারফর্মার। আস্থার সাথেই আগলে রাখছেন কিউলদের দূর্গ। ইঞ্জুরির আগ পর্যন্ত ফ্রেঞ্চম্যান স্যামুয়েল উমতিতিও ছিলেন দারুণ ফর্মে। বার্সেলোনা ডিফেন্স আগলে রাখতে এ দুজনই এবার নেতৃত্ব দিচ্ছেন সামনে থেকে।

ভালভার্দের বিষয়ে আসা যাক। কোচ এ পর্যন্ত বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়ে যেমন সফল হয়েছেন, তেমন বেশ কিছু সিদ্ধান্ত প্রশ্নের মুখেও পড়েছে। যেমন ডেনিস, রবার্তো নিজের খেলা প্রত্যেক ম্যাচেই দারুণ পারফর্ম করা সত্ত্বেও ভিভি তাদের নিয়মিত সুযোগ না দিয়ে রাকিটিচ-বুস্কেটস-ইনিয়েস্তার ফিক্সড মিড লাইন টানা নামিয়ে যাচ্ছিলেন। যদিও রাকিটিচ এত সুযোগের পরও নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। আর এ বয়সে ইনিয়েস্তা ঠিকঠাক বিশ্রাম পাচ্ছেন না, যেটা অনেক বেশিই প্রয়োজন এ মুহূর্তে তার জন্য। তাই প্রত্যাশানুযায়ী পারফর্মেন্সও দেখা হচ্ছে না ইনিয়েস্তার কাছ থেকে। যার প্রভাব পড়ছে দলের গেমপ্লেতে।

             

প্রায় প্রতি ম্যাচেই মেসি ম্যাজিক বা কোন একজনের একক প্রচেষ্টার ফসল হিসেবে ইতিবাচক ফল আসছে। কিন্তু সমর্থকদের জন্য এখনও ভরসার প্রতীক হয়ে উঠতে পারছেননা বস ভালভার্দে, অল্প দিনেই যা হয়ে উঠেছিলেন পেপ, টিটো, এনরিকেরা।

দলের এসব সমস্যার সমাধানে আসন্ন শীতকালীন ট্রান্সফার উইন্ডোতে মিডফিল্ডে অন্তঃত একটি সাইন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। একজন মিডফিল্ডার প্রয়োজন, যার খেলার ধরণ জাভির সাথে যায়। হোল্ডিং মিডফিল্ডার গোরেটজকা, আর্থারকে এরই মধ্যে স্কাউট করছে ক্লাব। এদের মধ্যে যেকোন একজনই হতে পারে একাদশের মিসিং পাজল। আবার মাশ্চেরানো ক্লাব ছাড়ছেন সহসাই। তাই প্রয়োজন একজন তরুণ প্রতিশ্রুতিশীল সিবি। আয়াক্সের ডি লিট হতে পারেন সেই পিক। আয়াক্স এবং বার্সেলোনার মধ্যকার সুসম্পর্ক এ সাইনিংকে সম্ভব করতে সাহায্য করবে অনেকটাই। একই সাথে সুয়ারেজের অফফর্ম ভাবাচ্ছে সবাইকে। এ সময় একজন অসাধারণ লেফট উইঙ্গার সাইন করাও দারুণ সিদ্ধান্ত হবে ক্লাবের। কটিনহো, গেলসন মার্টিন্স নিয়ে গুঞ্জন বেশ ডালপালা ছড়াচ্ছে এখনই।

সিজনের বাকি সময়ের জন্য দলের প্রতি শুভকামনা।

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন