ম্যাচ রিপোর্টঃ পগবার কামব্যাকে ইউনাইটেডের জয়, ফিরলেন ইব্রাহিমোভিচ

ম্যাচ রিপোর্টঃ পগবার কামব্যাকে ইউনাইটেডের জয়, ফিরলেন ইব্রাহিমোভিচ

১২ ম্যাচ। ১২ ম্যাচ ধরে দূরে ছিলেন দল থেকে। আর এই ১২ ম্যাচেই যেন মৌসুম উলটে গেছে ইউনাইটেডের। যেখানে পগবাকে নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে উড়ছিল ইউনাইটেড, সেই ইউনাইটেডই এখন ম্যান সিটি থেকে ৮ পয়েন্ট পিছিয়ে। গোলবন্যায় গা ভাসিয়ে দেওয়া সেই মোরিনহো দলই যেন গোলের চেহারা ভুলে গেছিল। টানা ৭ ম্যাচে গোল করতে ব্যর্থ হল রোমেলু লুকাকু। পুরো  দলেই যেন কিসের এক শূন্যতা দেখা দিচ্ছিল। আর সেই শূন্যতার নাম ছিল পল পগবা। 

গতকাল দীর্ঘদিন পর মাঠে ফিরে আবারও স্বরূপ চেনালেন পগবা। ম্যাচের শুরু থেকেই তার পায়ের কারুকাজ ও পাসিং এ স্পষ্ট ছিল তার প্রভাবটুকু। তবে ১৪ মিনিটেই ম্যানচেস্টারের সফলতম দলকে চমকে দিল নিউক্যাসেল। ডিআন্ড্রে ইয়েডলিনের ক্ষিপ্র গতির ক্রস আটকাতে গিয়ে হোঁচট খেলেন ইউনাইটেডের ডিফেন্ডার ভিক্টর লিন্ডেলফ। আর এই সুযোগেই বল জালে পাঠিয়ে দেন নিউক্যাসেল স্ট্রাইকার ডোয়াইট গেইল। ইনজুরির দরুন ম্যাচ খেলতে পারেনি ম্যান ইউনাইটেডের নিয়মিত দুই সেন্টারব্যাক ফিল জোন্স ও এরিক বায়ি। সেই সুযোগই যেন নিজেদের করে নিল নিউক্যাসেল। গোল হবার পর নতুন উদ্যমে আরো বেশ কিছু এটাক করে তারা। গোল না হলেও ইউনাইটেড সমর্থকরা আবারও পরাজিত হবার শঙ্কাতেই ছিলেন। 

কিন্তু ৩৮ মিনিটেই ম্যাচের মোড় ঘুরে গেল। সেই খোদ পগবাই যেন আবারও আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেন কেন তাকে ছাড়া রেড ডেভিলসরা এক ভিন্ন দল। দল নেতার মত দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে ম্যাচে ফেরালেন। উইং থেকে সুন্দর ফেইন্ট করে ব্যাক পোস্টে নিখুঁত এক ক্রস ছুড়ে দিলেন পগবা। সেই ক্রসেই গোল করলেন পগবারই জাতীয় দলের সতীর্থ এনথনি মার্শিয়াল। এই মৌসুম টগবগে ফর্মে আছেন মার্শিয়ালও। শুরুতে নিয়মিত্ত স্টার্ট না করলেও এখন তার পারফর্মেন্স দিয়ে কঠোর দাবি জানাচ্ছেন নিয়মিত হবার। মৌসুমে এরই মধ্যে করে ফেলেছেন ৭ গোল ও ৬ এসিস্ট। 

গোলের পর পরই আবারও যেন সতেজ হয়ে উঠে রেড ডেভিলসরা। ক্রমাগত করতে থাকে আক্রমন। আর প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে আবারও গোলের দেখা পায় তারা। এশলি ইয়াঙ্গের ক্রস থেকে হেডারে গোল দেন ক্রিস স্মলিং। লীড নিয়ে মাঠ ছাড়েন ইউনাইটেড। দ্বিতিয়ার্ধেও ধরে রাখে তারা তাদের সেই ক্ষিপ্রতা। ৫৪ মিনিটে আবারও গোল করে বসে তারা। আর কেই বা গোল দিবে সেই পল পগবা ছাড়া? এবারের প্রিমিয়ার লীগে ৫ ম্যাচে ৩ গোল ও ৩ এসিস্ট করে পুরো কমপ্লিট মিডফিল্ড পারফর্মেন্স জায়ের করছেন তিনি। ফিরতি ম্যাচ বেশ স্মরণীয়ই করে নিলেন তিনি। ৭০ মিনিটের দিকে অবশেষে আসে সেই কাঙ্ক্ষিত মুহূর্ত। ৭ ম্যাচ পর গোল করে গোল খরা কাটালেন রোমেলু লুকাকু। প্রিমিয়ার লীগে এ ছিল তার ৯৫ তম গোল। 

৭৭ মিনিটে মাঠে নামেন সুইডিশ লেজেন্ড জ্‌লাতান ইব্রাহিমোভিচ। গত বছর ইউরোপা লীগ কোয়ার্টার ফাইনালে একই সাথে তার ডান পায়ের এসিএল ও পিসিএল লিগামেন্ট ছিড়ে যায়। প্রায় বছর খানেকধরে ছিলেন মাঠের বাইরে। ধারনা করা হয়েছিল ২০১৮র আগে আর দেখা মিলবেনা তার। কিন্তু জ্‌লাতানতো আর বাকি ১০ জন মানুষের মত নন। টানা ২১২ দিন মাঠের বাইরে থাকার পর অবশেষে মাঠে ফিরলেন ইব্রা। উল্লাসে ফেটে পড়ল ওল্ড ট্র্যাফোর্ড। গোল করে বসেছিলেনও প্রায় নামার সাথে সাথেই। বাই সাইকেল কিকটা পোস্টে লেগেই সরে গেল। ম্যাচ শেষ হয় ইউনাইটেডের ৪-১ এর জয় দিয়েই। যদিও সিটি থেকে এখনও ৮ পয়েন্ট পিছিয়ে তারা, এই ম্যাচে ইতিবাচক বেশ কিছু দিক ছিল তাদের জন্য। যার মধ্যে অন্যতম পল পগবার রিটার্ন। 

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন