আলাভেসের বিপক্ষে মাদ্রিদের জয় এবং কিছু 'কিন্তু'

আলাভেসের বিপক্ষে মাদ্রিদের জয় এবং কিছু 'কিন্তু'

সিজনের বেশ বাজে শুরু করা দেপোর্তিভো আলাভেসের বিপক্ষে ম্যাচটা সহজই হবার কথা ছিল ডিফেন্ডিং স্প্যানিশ এবং ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদের জন্য। বিশেষত টানা পাঁচ ম্যাচ পরাজয় এবং দলীয় শুন্য গোলের রেকর্ড নিয়ে খেলতে নামা দলটি এভাবে চাপ দেবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের তা হয়ত কল্পনায়ও ছিল না জিনেদিন জিদান বাহিনীর! তবে তথাকথিত ছোট দলগুলোর বিপক্ষে গড়পড়তা পারফর্মেন্স দেয়া ইদানিং রিয়াল মাদ্রিদের স্বভাব হয়ে দাঁড়িয়েছে। গতকাল রাতে অবশ্য লস ব্লাঙ্কোসদের পার্ফমেন্সের পুরোটাই অর্ডিনারি ছিল না, তবে যে আগ্রাসী রিয়াল মাদ্রিদকে দেখে সমর্থকরা অভ্যস্ত তা যেন অনুপস্থিতই থেকে গেলো। যদিও শেষ অব্দি রিয়াল মাদ্রিদ তিন পয়েন্ট নিয়ে ফিরতে সক্ষম হয়েছে দেপোর্তিভো আলাভেসের ঘরের মাঠ মেন্ডিজোরোৎজা স্টেডিয়াম হতে এটিই সমর্থকদের জন্য স্বস্তি। 

রাতের অপ্রত্যাশিত নায়ক ডেব্যুট্যান্ট দানি সেবায়োসের কল্যাণে স্বস্তির শেষ হাসি মাদ্রিদের! দুটি গোলই করেছেন তিনি। ২-১ এর স্কোর লাইন বোঝাতে অপারগ আসলে ঠিক কতোটা প্রতিযোগিতামূলক ছিল ম্যাচটি! দেপোর্তিভোর পক্ষে একমাত্র গোলটি করেছেন মানু গার্সিয়া, বার্সা থেকে ধারে খেলতে আসা মুনির এল হাদ্দাদির অসাধারণ ক্রসের পর তার ক্লিনিক্যাল ফিনিশ (হেডে)। ম্যাচে আরও বেশ কয়েকবার গোলের খুব কাছাকাছি চলে এসেছিল দলটি। কিন্ত অবিশ্বাস্য সংখ্যক নিশ্চিত গোল সেভ হয়েছে দুই দলের বিপক্ষেই।  

গত পাঁচ সপ্তাহে হতশ্রী পার্ফমেন্স দেয়া আলাভেজকে দেখে বোঝার উপায় ছিল না পয়েন্ট টেবিলের একদম শেষদিকে রয়েছে দলটি। সত্যি বলতে বোধহয় লা লিগার ছোটবড় সব দলই সিজনে নিজেদের বেস্ট ডিসপ্লে দেখিয়ে যাচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদের বিরুদ্ধেই! বিশেষত মাদ্রিদের বিপক্ষে হওয়া ম্যাচগুলোতে প্রতিপক্ষ রক্ষণভাগ এবং গোলরক্ষকদের নিদারুণ নৈপুণ্য নিতান্তই অনস্বীকার্য। এই সিজনে শট এবং শট অন টার্গেটে রিয়াল মাদ্রিদ রয়েছে লা লিগায় এক নম্বরেই! অথচ কনভারশন রেট বিবেচনায় নিলে রিয়াল রয়েছে ১২ নম্বারে! একে প্রচন্ড দুর্ভাগ্য ছাড়া আর কি বলা চলে! ক্রিস্টিয়ানোর অমানুষিক যে শটটা প্রচন্ড কার্ভ করেও বারে লেগে ফিরে এলো এটাকে দুর্ভাগ্য ছাড়া কি বলা যায়? নাচো ফার্নান্দেজের হেডারটাও ছিল অসাধারণ! অবশ্য একই ধরণের দুর্ভাগ্যের সম্মুখীন আজ হয়েছে দেপোর্তিভো আলাভেসও।

রিয়াল মাদ্রিদের ডিফেন্স ছিল প্রচন্ড রকম নড়বড়ে। হয়তো এর পেছনে যৌক্তিক দাবি তেমন নেই তবে দানি কার্ভাহাল এবং নাচো ফার্নান্দেজ কম্বিনেশন অধিকাংশ ক্ষেত্রে আশানরুপ করতে পারেনা। বিশেষ করে সেটপিস ডিফেন্ড করার ফিজিক্যালিটির অভাবটা তখন নিশ্চিতভাবেই অনুভব করে রিয়াল মাদ্রিদ। রাফায়েল ভারানের অধারাবাহিক পার্ফমেন্সও হয়ত জিনেদিন জিদানের জন্য চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়াচ্ছে। সামর্থ্যের কোন অভাব নেই তবে ধারাবাহিকতার খানিক ঘাটতি এই তরুন ফ্রেঞ্চম্যানের মাঝে পরিলক্ষিত হচ্ছে বৈকি!

মাঝমাঠে রিয়ালের নিয়মিত ভরসার নাম টনি ক্রুস দলে না ফিরলে মাঝমাঠের নিয়ন্ত্রণ এবং কর্তৃত্ব পুনঃস্থাপন করাটা কঠিন হবে রিয়ালের জন্য। রক্ষণভাগও তার অনুপস্থিতিতে কিছুটা চাপের মধ্যে থাকে এবং খেলার নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়ে বলে মনে হচ্ছে। করিম বেনজেমা না ফেরা পর্যন্ত বোর্হা মায়োরালের গেম টাইম বৃদ্ধি পেলে বোধহয় আক্রমণভাগে রিয়াল মাদ্রিদের জন্য সুবিধে হতো। গ্যারেথ বেলকে আজ বিশ্রামে রাখা হয়েছিল। মার্কো এসেন্সিও একজন অসাধারণ প্রতিভাবান ফুটবলার যে তার স্থানে খেলেছে আজ। তবে প্লে-মেকিং মানসিকতার ঘাটতি আজ আক্রমণভাগে পরিলক্ষিত হয়েছে, প্রত্যেকে নিজ নিজ গোলের চিন্তায় কিছুটা মগ্ন ছিল। ইস্কোর কছে খুব সহজ একটি সুযোগ এসছিল, গোল রক্ষকের বিপক্ষে ওয়ান অন ওয়ান সিচুয়েশনে ছিল সে। স্রেফ বাম দিকে বল পাস করলেই ক্রিস্টিয়ানোর জন্য একটি ওপেন নেটার অপেক্ষায় ছিল। কিন্ত নিজে শট নিয়ে গোলটা মিস করেছেন তিনি। এসব ভুলভ্রান্তি দেপোর্তিভো আলাভেসের বিপক্ষে করে হয়ত পার পেয়ে যাবে রিয়াল, তবে শ্রেয়তর কোন দলের বিপক্ষে তা হবেনা। আজ দেপোর্তিভোই প্রায় ভোগাতে বসেছিল রিয়ালকে, অনেকটাই ভাগ্যের জোরে রক্ষা পেয়েছে মাদ্রিদ বলা চলে!

তবে পুরো রিয়াল মাদ্রিদ দলের সবচে সন্তোষজনক দিক ছিল গোলকিপিং, প্রতিপক্ষ গোলকিপাররা মাদ্রিদের বিপক্ষে ইদানিং অমানবিক সব পার্ফমেন্স দিচ্ছে বিধায় এই মানুষটা তার যোগ্য ক্রেডিট থেকে প্রায়ই বঞ্চিত হচ্ছে বলা যায়। কেইলর নাভাস ছিলেন বরাবরের মতো অসাধারণ! উক্ত পজিশনে তার থেকে রিয়াল মাদ্রিদ সার্ভিস পাচ্ছে তা সত্যিই সম্মানের দাবীদার। হাজার ভুলের এই ম্যাচেও এই একটি দিকে রিয়াল মাদ্রিদ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতেই পারে! হয়ত কেইলর নাভাসের মতো দুই একজনের প্রচন্ড প্রচেষ্টাকে প্রেরণায় রুপান্তর করে উজ্জীবিত মাদ্রিদ এগিয়ে যাবে আবারও লা লিগা জয়ের মিশনে! প্রেরণা এবং বিশ্বাসের এমন একটি উৎস আপাতত খুবই দরকার দলটির! আত্নবিশ্বাস এবং জয়ের ক্ষুধায় ক্ষুরধার সেই মাদ্রিদ আবারও ফিরে আসবে তার চিরচেনা রুপে! অন্তত পৃথিবীজুড়ে মাদ্রিদিস্তাদের তেমনটাই প্রত্যাশা! 

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন