৫ টি সেরা গ্রীষ্মকালীন দলবদল

৫ টি সেরা গ্রীষ্মকালীন দলবদল

আজকে বাংলাদেশ সময় ভোর ৫ টায় শেষ হল এই মৌসুমের গ্রীষ্মকালীন ট্রান্সফার। চলুন দেখে নেই এবারের টপ ৫ টি ট্রান্সফার। 

৫। বারনারডো সিল্ভা টু ম্যানচেস্টার সিটি 

বারনারডো সিল্ভা মোনাকো থেকে এবার যোগ দিয়েছেন পেপ গারদিওলা বাহিনির সাথে। মাত্র ৪২ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে এই প্লেমেকার কে কিনে ভালই দান মেরেছে ম্যান সিটি। সিটির আরেক সিল্ভা, ডেভিড সিল্ভার রিপ্লেসম্যান্ট হিসাবে ভাবা হচ্ছে তাঁকে। গত সিজনে মোনাকোর হয়ে ৫৮ ম্যাচে করেছেন ১১ গোল, মোনাকোর গত সিজনের সাফল্যের পেছনে তার অবদান ছিল। মোনাকো লিগ জেতার পাশাপাশি চ্যাম্পিওন্স লিগেও ভাল পারফর্ম করে দেখিয়েছে।  বারনারডো সিল্ভা নিঃসন্দেহে ম্যানসিটি কে উপরে নিয়ে জাওার ক্ষমতা রাখেন। ট্রান্সফার মার্কেটে যখন অনেক প্লেয়ারের দাম মাত্রাতিরিক্ত, সিল্ভার দাম বেশ কমই ছিল বলা যায়।

 

৪। দানি সেবালোস টু রিয়াল মাদ্রিদ 

দানি সেবালোস অনেকের কাছে অপরিচিত কিংবা স্বল্প পরিচিত হলেও খেলোয়াড় হিসাবে তার ক্ষমতা আছে নিজেকে অনন্য পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার। রিয়াল বেতিসের হয়ে গত সিজনে অনেক ভাল পারফর্ম করেছেন তিনি। ইউরোপের টপ ৫ লিগে অনূর্ধ্ব ২১ বয়সী প্লেয়ারদের মধ্যে সবচাইতে বেশি ড্রিবল করেছেন তিনি। মাত্র ১৭ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে এসেছেন রিয়াল মাদ্রিদে, যাকে বার্সেলোনা চাইলে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার রিপ্লেস্মেন্ট হিসাবে কিনতে পারত। প্লেমেকার হিসাবে দারুন, অসাধারন বল কন্ট্রোলের অধিকারী লা লিগার "নেক্সট বিগ থিং" হতে পারেন।

৩। লিওনার্দো বনুচ্চি টু এসি মিলান

এসি মিলানের জন্য "নেক্সট লেভেল আপগ্রেড" বলে যদি কিছু হয়ে থাকে, সেটা হয়েছে লিওনার্দো বনুচ্চির আগমনে। ডিফেন্স থেকে লং পাস দিয়ে প্লে মেকিং এবং এর সাথে শক্ত ডিফেন্স, এ সি মিলান তাদের বিখ্যাত ডিফেন্সিভ লাইনআপ কে কিছুটা মনে করিয়ে দিচ্ছে বনুচ্চি কে সাইন করিয়ে। অনেকটা পাওার শিফট হয়ে গেল জুভেন্টাস থেকে এসি মিলানে। তাবৎ দুনিয়ার বেস্ট ৩ জন ডিফেন্ডারের একজন অবশ্যই লিওনার্দো বনুচ্চি, কিন্তু তার দাম ছিল মাত্র ৪২ মিলিয়ন ইউরো, বারগেইন বলা মোটেও বাহুল্য হবে না।

 

 ২। ম্যাটিচ টু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড

গত সিজন এবং ২ বছর আগে জোসে মরিনহোর সময়ে চেলসি লিগ জিতে, মানে ৩ বছরে ২ বার লিগ জেতা চেলসির মাঝ মাঠের প্রধান সেনানী ছিলেন সার্বিয়ান প্লেয়ার নেমানিয়া ম্যাটিচ। মাঝমাঠে বিপক্ষের প্লে মেকিং এ বাধা দেওা, বল কালেক্ট করে দ্রুত অ্যাটাকিং পজিশনে যাওয়া, কিংবা ফ্রি কোন প্লেয়ার কে পাস দিয়ে গোলের সুযোগ তৈরি করা, সেন্টার ব্যাকদের প্রোটেকশন দেওা কাউন্টার অ্যাটাকের সম্মুখীন হলে, সব ই আছে ম্যাটিচের মধ্যে। চেলসি থেকে মাত্র ৪০ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে ম্যাটিচ কে দলে ভিড়িয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তাঁকে নিয়ে আসার পরেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রিমিয়ার লিগে পারফর্মেন্স ছিল দেখার মত, ৩ ম্যাচে একটিও গোল খায় নি তারা,পগবা ফ্রি রোল পেয়েছে যেটা গতবার পায়নি,ইউনাইটেড ১০ গোল করেছে। ইউনাইটেড যদি এবার প্রিমিয়ার লিগ জিতে, সেটা হবে ম্যাটিচের আগমনের কারনে।

 
  
১। নেইমার টু পিএসজি 

সিজনের রেকর্ড ব্রেকিং সাইনিং। ১৯৮ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে বার্সেলোনা থেকে পিএসজি তে যোগ দিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান সেনসেশন নেইমার। দুনিয়ার ৩ জন বেস্ট প্লেয়ারের নাম বললে, একজন অবশ্যই নেইমার। বার্সেলোনার দেওয়া বাই আউট ক্লস ট্রিগার করে তবেই নেইমার কে বাগিয়েছেন পিএসজি মালিক নাসসের আল খেলাফি। এই পর্যন্ত কয়েক ম্যাচ খেলে ফেলেছেন পিএসজির হয়ে এবং নিজের পারফর্মেন্সের ঝলক দেখিয়ে দিয়েছেন। বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজি তে আসার প্রধান কারন যাতে তিনি "মেইন ম্যান" হিসাবে খেলতে পারেন যাকে কেন্দ্র করে দল গড়ে তোলা হবে। অনেকেই সন্দেহ প্রকাশ করেছেন নেইমারের এরকম সিদ্ধান্ত নেওার জন্য, কিন্তু যে খেলে ভাল, সে সব জায়গাতেই ভাল। নেইমারের পরবর্তী লক্ষ্য পিএসজি কে চ্যাম্পিওন্স লিগ জেতানো, এছাড়াও ব্রাজিল কে বিশ্বকাপ জেতানোর চাপ তার উপরে আছে। সময়ই বলে দিবে তার এই সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল না ভুল। তবে এটা বলাই বাহুল্য যে, ট্রান্সফার মার্কেটে সবচাইতে বড় আপগ্রেডটা পিএসজির ই হয়েছে।

এছাড়াও আরও অনেক ট্রান্সফার ছিল যেগুলো কে ভাল বলা যায়, ক্রাইকোভিয়াক টু ওয়েস্ট ব্রমউইচ অ্যালবিওন, নবি কেইটা টু লিভারপুল, ওসমান দেম্বেলে টু বার্সেলোনা, লাকাজাতে টু আর্সেনাল, নিকোলাস সুলে টু বায়ার্ন মিউনিখ, ব্লেইস মাতুইদি টু জুভেন্টাস, রোমেলু লুকাকু টু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, কাইল ওয়াকার টু ম্যান সিটি ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।   
 

নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশড হওয়া মাত্রই পড়তে চান?

আজই সাবস্ক্রিপশন করে নিন